সিদ্ধিরগঞ্জে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন

0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

সোমবার সকাল ১১ টায় সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি মতিন সড়কে তিতাসগ্যাসের মোবাইল কোর্ট অভিযান চালিয়ে জনৈক আলম নামে এক ব্যক্তির একটি মশার কয়েল তৈরির কারখানার অবৈধ গ্যাসলাইন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে। এ সময়ে ওই কারখানাকে ১লাখ টাকা জরিমানা করে আদায় করেছেন।  নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ জাহাঙ্গীর আলম এ মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন।কয়েল কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে পাইপসহ অন্যান্য সরঞ্জামাদি জব্দ করা হয়।  এ সময় উপস্থিত ছিলেন তিতাসগ্যাস নারায়ণগঞ্জ কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মোঃ জাফরুল আলম, উপ ব্যবস্থাপক মোঃ কবির আহমেদ, সহকারী প্রকৌশলী মোঃ শাহরিয়ার ও উপসহকারী প্রকৌশলী মোঃ আজিজুল ইসলামসহ তিতাসগ্যাসের অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। দুপুরে ২ টায় মৌচাক রোডে একটি  নুপুর নামে রেষ্টুরেন্টের গ্যাস সংযোগ বি”িচ্ছন্ন করে। আবাসিক গ্যাস সংযোগ নিয়ে আবাসিকে গ্যাস ব্যবহার না করে জনৈক হাবিবুর রহমান হাবিন বানিজ্যিকভাবেঅবৈধভাবে রেষ্টুরেন্টে গ্যাস ব্যবহার করার অভিযোগ গ্যাস সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করে সিলগালা করা হয়। নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, অবৈধভাবে গ্যাস সংযোগ নিয়ে ব্যবহার করায় গ্যাস আইন ২০১০ এর আলোকে  কয়েল কারখানার গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন  করা হয়েছে নগদ ১ লাখ টাকা জরিমানা আদায়করনসহ গ্যাস সংযোগ ব্যবহৃত মালপত্র জব্দ করা হয়েছে। নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ জাহাঙ্গীর আলম আরও বলেন, আবার যদি অবৈধভাবে গ্যাস সংযোগ নিয়ে কারখানা চালু করা হয় তাহলে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন আরো কঠোরভাবে আইন প্রয়োগ করা হবে। তিতাসগ্যাসের ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মোঃ জাফরুল আলম বলেন, অবৈধ গ্যাস ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান চলবে।  এদিকে অবৈধ গ্যাস ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে তিতাসগাসের মোবাইল কোর্টের  অভিযানের খবরে বৈধ গ্যাস সংযোগকারী গ্রাহকদের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে। কারণ বিভিন্ন কারখানায় অবৈধ গ্যাস ব্যবহার করার কারণে কারণে আবাসিকের বৈধ গ্রাহকরা দিনের বেলায় ঠিকমতো গ্যাস পাচ্ছেন না। সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি, ধনুহাজীরোড, হাজেরা মার্কেট. তেরা মার্কেট, মতিন সড়ক, পাইনাদি, শাপলা চত্বর,বাতানপাড়া মাদ্রাসারোডে ও কান্দাপাড়ায় রয়েছে একাধিক মশার কয়েল তৈরির কারখানা। এসকল কারখানায় অবৈধভাবে প্রতিমাসে অর্ধকোটি টাকার গ্যাস চুরি করে ব্যবহার করে কয়েল তৈরি করছে।এছাড়া হিরাঝিল, মক্কীনগর এলাকায় প্রতিটি বাড়িতে বৈধ চুলার পাশাপশি ১০-১৫ টি করে অবৈধ চুলা ব্যবহার করার গুরুতর অভিযোগ রয়েছে। তিতাসগ্যাসের নারায়ণগঞ্জ কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মোঃ জাফরুল আলম বলেন হিরাঝিল এলাকায় আবাসিকেও অবৈধ চুলার বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হবে।

Leave A Reply