শহীদ মিনার অবরুদ্ধ করে সাংস্কৃতিক জোটের বৈশাখী অনুষ্ঠান

0
শেয়ার করুনShare on Facebook634Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Pin on Pinterest0Print this pageEmail this to someoneShare on Tumblr0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

পহেলা বৈশাখে নিরাপত্তার স্বার্থে বিকেল ৫ টার মধ্যে উন্মুক্ত স্থানে কোন প্রকার অনুষ্ঠান আয়োজন করা যাবে না বলে সরকারি বিধি নিষেধ করা হয়েছে। এদিকে নারায়ণগঞ্জে সেই বিধি নিষেধ অমান্য করে চাষাঢ়া শহীদ মিনার অবরুদ্ধ করে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে বৈশাখী অনুষ্ঠান করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠান শুরু থেকে শহীদ মিনারের প্রধান দুইটি ফটক বন্ধ করে রাখা হয়। সাংস্কৃতিক জোটের লোকজন ছাড়া অন্য কোন জনসাধারণকে মিনার প্রাঙ্গণে ঢুকতে দেওয়া হয়নি এবং খারাপ আচারণ করার অভিযোগ পাওয়া যায়।

এদিকে নারায়ণগঞ্জে বিকেল ৫ টার পর উন্মুক্ত স্থানে প্রশাসনের নির্দেশ অনুযায়ী কোথাও অনুষ্ঠানের আয়োজন কেউ না করলেও নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোট তা অমান্য করে অনুষ্ঠান করায় সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। তবে সাংস্কৃতিক জোটের দাবি প্রশাসনের কাছে অনুমতি নিয়েই তারা রাত ১০ টা অবধি এই অনুষ্ঠান পরিচালনা করেছেন। তাহলে কি প্রশাসন নিজেই তাদের নির্দেশনা ভেঙ্গেছেন?

শুক্রবার বাংলা নববর্ষের ১৪২৪ পালন উপলক্ষে সাংস্কৃতিক জোটের এমন ন্যাকার জনক কর্মকান্ডের জন্য মিনারে আসা অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

এ বিষয়ে মিনারে আসা অনলাইন সংগঠন ঐক্য ৭১ এর সদস্য সৈয়দ রনি নামে এক যুবক জানান, আমরা কয়েকজন প্রতিদিনের ন্যায় শহীদ মিনারে ঘুড়তে আসি এমন সময় দেখি মিনারের গেইট বন্ধ করে রেখেছে সাংস্কৃতিক জোটের লোকজন। আমি ভিতরে ঢুকতে চাইলে তারা আমাকে গতিরোধ করে। এসময় ভবানী শংকর নামে সাস্কৃতিক জোটের এক নেতা কয়েকজন নিয়ে আমাদের বলে জোটের লোকজন ছাড়া অন্য লোকজনকে ঢুকতে দেওয়া যাবে না। পরক্ষনে আমি বলি শহীদ মিনার তো সর্ব সাধারণের জন্য আমাদের ঢুকতে দিবেন না কেন? এসময় ভবানী শংকর রায় বলেন বেশী কথা বলিস না যা এখান থেকে।

১ লা বৈশাখ পালনে চট্রগ্রাম থেকে আসা আরেক যুবক বাপ্পী জানান, আমি চট্রগ্রাম থেকে নারায়ণগঞ্জে ১লা বৈশাখ পালন করতে আসছি। শহীদ মিনারে ঘুড়তে এসে দেখি গেইট বন্ধ করে সাংস্কৃতিক জোটের অনুষ্ঠান চলছে। আমি ভিতরে ঢুকতে চাইলে সাংস্কৃতিক জোটের লোকজন আমাকে বাঁধা দেয়। আমি বলি শহীদ মিনার সবার জন্য উন্মুক্ত। আপনারা কেন আমাদের ঢুকতে দিচ্ছেন না। জোট নেতৃবৃন্দ খাারাপ ভাষায় বলে আমরা মেয়র আইভী ও প্রশাসনের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে এই অনুষ্ঠান করছি কাউকে ঢুকতে দেওয়া যাবে না। বাপ্পী আরো জানান, এটা কোন ধরনের জেলা যেখানে শহীদ মিনার অবরুদ্ধ করে একটি গোষ্ঠী অনুষ্ঠান করবে আর সর্ব সাধারণকে ঢুকতে দেওয়া হবে না। মাননীয় মেয়র মহোদয় ও জেলা প্রশাসন এই অনুষ্ঠানের কিভাবে অনুমতি দেন । তারা সর্ব সাধারণের নাকি সাংস্কৃতিক জোটের।

ঘুড়তে আসা এক দপ্ততি জানান, আমরা স্বামী-স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে শহীদ মিনারে ঘুড়তে আসি। আমাদের মিনারে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। সাংস্কৃতিক জোটের লোকজন আমাদের সাথে খারাপ আচারণ করেছেন। সংস্কৃতি মনা মানুষদের এমন খারাপ আচারণ করা উচিত নয় বলে তিনি মনে করেন।

নারায়ণগঞ্জে জেলায় সদর উপজেলায় ঘুড়ার মত তেমন কোন উপযুক্ত জায়গা নেই বলেই চলে। এখানকার সাধারণ জনগন প্রতিদিন বিনোদনের জন্য শহীদ মিনারে ঘুড়তে আসে। তাই নারায়ণগঞ্জের সচেতন মানুষের মতে সাধারণ জনগনকে ভোগান্তি সৃষ্টি করে এমন অনুষ্ঠান করা উচিত নয় বলে জানিয়েছেন। তারা আরো মনে করেন বাঙ্গালী জাতির সংস্কৃতি ধরে রাখতে এই অনুষ্ঠান আয়োজন ভাল কিন্তু তবে তা সর্ব সাধারণের জন্য উন্মুক্ত হওয়া প্রয়োজন কারন এই দেশ আমার আপনার সবার।

শেয়ার করুনShare on Facebook634Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Pin on Pinterest0Print this pageEmail this to someoneShare on Tumblr0

Leave A Reply