সোনারগাঁয়ের পঞ্চমীঘাটে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে জনসাধারণ

0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

সোনারগাঁও উপজেলাধীন সাদিপুর ইউনিয়নের পঞ্চমীঘাট স্কুল এন্ড কলেজের সন্নিকটে অলিপুরা টু নয়াপুর সড়কের পঞ্চমীঘাট-বটতলা এলাকায় বহুকাল আগে নির্মিত একটি ব্রীজে অতি সম্প্রতি আচমকা গর্ত দেখা দেয়ায় প্রায়ই দূর্ঘটনা সহ নানাভাবে পথচারীরা আহত হবার খবর পাওয়া যাচ্ছে। একদিকে দূর্ঘটনার প্রবণতা বাড়ার পাশাপাশি নিকটস্থ পঞ্চমীঘাট স্কুল এন্ড কলেজ, পঞ্চমীঘাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও এইচবি কিন্ডার গার্টেনে আসা কোমলমতি শিক্ষার্থী সহ স্থানীয় কয়েক হাজার জনসাধারণ ঝুঁকি নিয়ে অত্র ব্রীজ দিয়ে গন্তব্যে যাচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয়রা গণমাধ্যমকে অভিযোগ করে বলেন, ব্রীজটি সাদিপুর ইউনিয়নের একটি গুরুত্বপূর্ণ ও ব্যস্ততম সড়কে অবস্থিত। প্রায় প্রতিদিন অত্র রাস্তা দিয়ে সাদিপুর, সনমান্দি সহ অন্যান্য ইউনিয়নের জনসাধারণ চলাফেরা করে। কিন্তু গেল কয়েকদিন আগে একটি ছোট গর্ত থেকে আস্তে আস্তে ব্রীজে বড় গর্তের আকার ধারণ করছে। গর্ত হয়ে ব্রীজের মূল কাঠামো ভেঙ্গে পড়ছে এবং ব্রীজের এই দৈন্যদশা দেখে স্থানীয়রা ব্রীজটির সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। তাছাড়া উক্ত ব্রীজ দিয়ে বেলপাড়ায় বানানো কাঁচা ইট বহনে ব্যবহৃত ট্রাক সহ নিয়মিত মালবাহী ভারী যান চলার কারণেও ব্রীজটি ভার বহন করার ক্ষমতা হারাচ্ছে। ছোট বড় যান প্রায়ই দূর্ঘটনায় পতিত হচ্ছে এবং কোমলমতি শিক্ষার্থীরাও আহত হচ্ছেন। রাতে চলাফেরা করার ক্ষেত্রে ব্রীজটি যেন স্থানীয়দের জন্য একটি মরনফাদে পরিণত হয়েছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। গত ১ বছর আগে রাস্তাটি কার্পেটিং সহ মেরামতের কাজ করা হলেও ব্রীজটির এই বেহাল দশার কারণে চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের নি¤œ মানসম্পন্ন উপকরণ দিয়ে ব্রীজ বানানোকেও দায়ী করা হচ্ছে। কোমলমতি শিক্ষার্থী সহ জনগণের চলাচলের ব্যবস্থাকে সুগম করতে ঝুঁকিপূর্ণ ব্রীজটি দ্রুত মেরামত সহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সাদিপুর ইউপি চেয়ারম্যান সহ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন স্থানীয়রা।
এ বিষয়ে সাদিপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ মোল্লা’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ব্রীজে গর্ত বা ভেঙ্গে যাবার বিষয়ে আমি অবগত নই। আমি সরেজমিনে বিষয়টি দেখব এবং বিষয়টি উপজেলায় দায়িত্বরত ইঞ্জিনিয়ারদেরকে গুরুত্বসহকারে অবহিত করব যাতে দ্রুত সময়ের মধ্যে মেরামত বা সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়।

Leave A Reply