আল্লাহ কোরআন নাজিল করেছেন পড়ার জন্য নয় বুঝার জন্য-শামীম ওসমান

0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

ধর্মীয় অন্ধতা ও কুসংস্কার থেকে মুক্তি এবং আল্লাহর সঠিক পথ পেতে সবাইকে মাতৃভাষা বাংলায় পবিত্র কোরআন পড়ার আহ্বান জানিয়ে নারায়ণগঞ্জ-৪ (সিদ্ধিরগঞ্জ-ফতুল্লা) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব একেএম শামীম ওসমান বলেছেন, মহান আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনে পরিস্কার ভাবে তাঁর বান্দাদের উদ্দেশ্যে রাসুলের মাধ্যমে বলেছেন, তুমি যখন কোরআন পড় আমিতো তোমার পাশেই থাকি, আমিতো তোমার বন্ধু। আমাদের নবী কারীম হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়াসাল্লাম বিদায় হজ্বের শেষ বাণীতে বলেগেছেন যে, আমার উম্মত ও আশরাফুল মাখলুকাতের জন্য দুইটি জিনিস অনুসরন করতে হবে এবং এ দু’টি জিনিস যারা অনুসরন করবে তাদের জন্য জন্নাত অপেক্ষা করবে। এক নাম্বার হচ্ছে আল্লাহর তরফ থেকে যে কোরআন নাজিল হয়েছে তা এবং অপরটি হচ্ছে নবীজীর জীবনী। আমার ৫৭ বছর বয়ষ পাড় হয়ে গেছে, বহুবার কোরআন পড়েছি কিন্তু গত এবছর আগেও আমি বুঝতামনা সত্যিকথা। এ কারণে আমি বাংলায় অর্থসহ কোরআন পড়ি। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন কোরআন নাজিল করেছেন পড়ার জন্য নয় বুঝার জন্য। এই যে বুঝার জন্য নাজিল করেছেন তার প্রমাণ হলো আমাদের নবীজী বিদায় হজ্বের ভাষণে বলেছেন প্রতিটি নর-নারীর জন্য জ্ঞান অর্জন করা ফরজ।
শনিবার (১০ মার্চ) রাতে নাসিক ৪নং ওয়ার্ডের তাজ জুট মিল খেলার মাঠে শিমরাইল দারুচ্ছুন্নাত নেছারিয়া ছালেহিয়া আলিম মাদ্রাসা গভর্ণিং বডির উদ্যোগে আয়োজিত ২৪তম দুই দিনব্যাপী ওয়াজ ও দোয়ার মাহফিলের প্রথম দিনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সাবেক জাতীয় শ্রমিকলীগের সভাপতি ও অত্র মাদ্রাসার গভর্নিং বডির সভাপতি আব্দুল মতিন মাষ্টারের সভাপতিত্বে উক্ত ওয়াজ মাহফিলে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, অত্র মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ্ব মো: আমিনুল ইসলাম, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হাজী ইয়াসিন মিয়া, নাসিক ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আরিফুল হক হাসান ও অত্র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মাওলানা মো: ফরিদ উদ্দিনসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ প্রমূখ।
এসময় সাংসদ শামীম ওসমান আরো বলেন, আমরা পৃথিবীতে এসেছি আবার একদিন চলে যেতে হবে, কিন্তু এ কথাটি কারো স্মরণে নেই। এ জন্যই পৃথিবীতে এতো ঝামেলা। অনেকে এ ধর্মটাকে অনেক কঠিন করে দেয়। আমাদের যারা হুজুর আছেন তারা আরবীতে কথা বলছেন আর আমরা মাথা ঝুলাচ্ছি। তারা বলছেন সুবহানাল্লাহ, আমরাও বলছি সুবহানাল্লাহ, বলছেন আলহামদুলিল্লাহ, আমরাও বলছি আলহামদুল্লিাহ, বুঝলাম না কিছুই। আমাদেরকেতো বুঝার জন্য বলা হয়েছে কোরআন এবং আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনে রাসুলকে বলছেন, এই কোরআন আমি আরবীতে নাজিল করেছি এই কারণে যে আপনার মাতৃভাষা আরবী। যেহেতু আপনার মাতৃভাষা আরবী সেই কারণে আপনার যাতে সহজে বোধগম্য হয় সে কারনে আমি আরবী ভাষায় এ কোরআন নাজিল করেছি। যদি আমাদের নবীজী চায়নায় জন্মগ্রহণ করতে তাহলে চাইনিজ ভাষাতেই কোরআন নাজিল হতো, অথবা বাংলাদেশে জন্মগ্রহণ করলে হয়তো বাংলা ভাষায় নাজিল হতো। আমাদেরকেতো গাইডবুক দেয়া হয়েছে, এটাকে পড়, বুঝ এবং সে মোতাবেক চলো। আমার অক্ষর নাই সেটা ভিন্নকথা কিন্তু যার অক্ষর জ্ঞান আছে সে এটাকে আরবী ভাষায় পড়ে বুঝতে পারলে ভালো, তবে মাতৃভাষা মাতৃভাষাই, আরবী ভাষায় যেটা না বুঝবো সেটা মাতৃভাষায় সহজে বোধগম্য হবে। প্রত্যেকটি মাতৃভাষায় নিজস্ব একটা অনুভুতি রয়েছে। যেমন ইংরেজীতে মাম্মী, মাদার এবং বাংলায় মা ডাকে যে শান্তি পাবো অন্য ভাষায় কি তা পাবো? আবার ইংরেজী ভাষাভাষী যারা তারা ঠিকই মাম্মী ডাকে প্রশান্তি পাবে।
তিনি আরো বলেন, আল্লাহ কোরআনে বলেছেন, এই কোরআন জ্ঞানীদের জন্য। এখানে জ্ঞানী মানে ডেইলী স্টারের সম্পাদক, প্রথম আলোর সম্পাদকের কথা বলা হয়নাই যারা নবীজীর ব্যঙ্গচিত্র আকেঁন অথবা সুদখোর ইউনুছের কথা বলা হয়নাই। এখানে জ্ঞানী বলা হয়েছে তাদেরকে, যে আল্লাহর জ্ঞান অর্জন করতে চান। গড় গড় করে পড়ে কোরআন খতম দিয়ে কোন লাভ নেই! কোরআন পড়ে আপনাকে শিখতে হবে এবং অন্যকে শিক্ষা দিতে হবে। হাসরের মাঠে প্রত্যেকের জবাব প্রত্যেককে দিতে হবে, এমনকি পিতার জবাব পুত্র কিংবা পুত্রের জবাব পিতা দিতে পারবে না। কিন্তু বর্তমানে ধর্মের নামে বোমা মেরে, আগুন দিয়ে এবং জবাই করে মানুষ হত্যা করা হচ্ছে। ইসলামতো সে শিক্ষা দেয় না। তাই নিজ মাতৃভাষায় পবিত্র কোরআন পড়ে দুনিয়া এবং আখেরাতের সঠিক শিক্ষা নিন তবেই পরপারে মুক্তি পাবেন।
পরে সাংসদ শামীম ওসমান সবাইকে ইন্টারনেটে আমাদের রাসুল হযরত মুহাম্মদ (সা:) এর বিদায় হজ্বের শেষ ভাষণ শুনিয়ে সে মোতাবেক চলার জন্য অনুরোধ করেন।

Leave A Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.