মাদকসহ গ্রেফতার কাউন্সিলর হাসানের মাদক নির্মূলের ঘোষণা!

0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

বুধবার নাসিক ৪নং ওয়ার্ড উত্তর আজিবপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে জনতার মুখোমুখী অনুষ্ঠানে বিভিন্ন এলাকা থেকে বিভিন্ন বয়সী লোকজন উপস্থিত হয় কাউন্সিলর হাসানের আমন্ত্রনে। জাইকাসহ সিটির কর্মকর্তারা অনুষ্ঠান শুরুর ঘোষণা দিলেন। মঞ্চে উপবিষ্ট নাসিক ৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আরিফুল হক হাসান ও সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর মনোয়ারা বেগমও উপস্থিত। গত এক বছরে এলাকাবাসীর কতটুকু আস্থা অর্জন করতে পেরেছে, এলাকার কি কি উন্নয়ন করেছে কাউন্সিলর হাসান। এলাকাবাসীর বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছেন কাউন্সিলর হাসান। এক পর্যায়ে এলাকাবাসীর প্রশ্নের জবাবে,কাউন্সিলর হাসানের মাদক নিমূলের আশ্বাসের ঘোষণায় উপস্থিত লোকজনের মধ্যে ক্ষোভ প্র্রকাশ করে জানান, একজন মাদক ব্যবসায়ী কিভাজে মাদক নির্মূল করবে। যার নির্দেশে ৪নং ওয়ার্ড এলাকার প্রতিটি পাড়া মহল্লায় মাদক বিক্রি বেড়েছে। বেড়েছে মাদকব্যবসায়ী ও মাদকসেবি। থানা খোজ নিয়ে জানা যায়, সিদ্ধিরগঞ্জের বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে সবচেয়ে বেশী চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী নাসিক ৪নং ওয়ার্ডে রয়েছে। যার সেল্টার দিচ্ছে কাউন্সিলরের সাথে থাকা লোকজন। যাদের মধ্যে রয়েছে মাদক স¤্রাজ্ঞী রোকসানা, তার বড় ছেলে হত্যা মামলাসহ একাধিক মামলার আসামী মানিক। মাদক ব্যবসায়ী রোকসানা ও কুট্টির মাদক স্পট থেকে যারা মাসোয়ারা নিতো তারাই আজ কাউন্সিলর হাসানের চারপাশ ঘিরে রেখেছে। এদিকে উপস্থিত লোকজন জানায়, যে ব্যক্তি মাদকসহ র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হওয়ার পরও মাদক থেকে সরে আসেনি। তার পক্ষে এলাকায় মাদক নির্মূলের পরিবর্তে মাদক ব্যবসা দিন দিন ছড়িয়ে পড়ছে, এবং পড়বে। নাসিকের ৪ নং ওয়ার্ড এলাকার মাদকের ভয়াবহ চিত্রই তা বলে দিচ্ছে। এমন ভাষ্য জনতার মুখোমুখী অনুষ্ঠানে উপস্থিত এলাকাাবাসীর। নারায়ণগঞ্জ সিটি করোশেনের প্রতিটি ওয়ার্ডে সিটি গর্ভানেন্সের আওতায় জাইকার অর্থায়নে জনতার মুখোমুখি অনুষ্ঠান আয়োজন করে আসছে। তারই ধরাবাহিকতায় গতকাল বুধবার বিকেলে ৪ নং ওয়ার্ড এলাকায় জনতার মুখোমুখী অনুষ্ঠানটি আয়োজিত হয়। এতে ৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আরিফুল হক হাসান, সংরক্ষিত কাউন্সিলর মনোয়ারা বেগমসহ সিটি ও জাইকা প্রতিনিধি এবং স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ্উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে বিভিন্ন প্রশ্নের পর এক পর্যায়ে মাদক নির্মূুলের বিষয়ে জনতার প্রশ্নের জবাবে মাদক নির্মূলে কাউন্সিলর হাসানের দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করলে উপস্থিত জনতা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলতে থাকেন, আরিফুল হক হাসান ৭ খুন মামলার প্রধান আসামী নূর হোসেনের আস্থাভাজন ছিল। নূর হোসেনের মাদকসহ সব ধরনের আয়ের হিসাব তার কাছে ছিল। তাই কাউন্সিলর হাসানো মুখে মাদক প্রতিরোধের কথা এ যেনো ভুতের মুখে রাম নাম বলে অনেকেই অনুষ্ঠান শেষে বাড়ী ফেরার পথে তীর্যক মন্তব্য করতে শোনা যায়।

Leave A Reply