৯ নাম্বার বিয়ে করতে গিয়ে র‌্যাবের হাতে আটক হলেন ভূয়া এএসপি

0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

সিদ্ধিরগঞ্জে মো: শাহীন আলম ওরফে তারেক ওরফে লিটন ওরফে সজিব (২৯) নামে র‌্যাবের ভুয়া এএসপি পরিচয়দানকারীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১’র সদস্যরা। এসময় তার নিকট থেকে একটি ভুয়া পুলিশ আইডি কার্ড, বিপুল পরিমান পুলিশের ভিজিটিং কার্ড, পুলিশ ও র‌্যাবের ইউনিফর্ম পরিহিত ছবি, এএসপি সজিব নাম সম্বলিত পরিচয়দানকারী দাওয়াত কার্ড এবং তিনটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়।

বুধবার (৩ অক্টোবর) সন্ধ্যায় সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজীনগরে অবস্থিত র‌্যাব-১১’র সদর দপ্তর থেকে সহকারী পরিচালক মো: নাজমুল হাসান স্বাক্ষরিত এশটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।

ধৃত সজিব নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জ থানার এখলাসপুর এলাকার হাজী মোহাম্মদ শহীদুল্লাহর ছেলে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব জানায়, মঙ্গলবার (২ অক্টোবর) সন্ধ্যা ৬টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১১’র একটি আভিযানিক দল সিনিঃ এএসপি মোঃ আলেপ উদ্দিন, পিপিএম ও এএসপি শাহ মোঃ মশিউর রহমান, পিপিএম এর নেতৃত্বে সিদ্ধিরগঞ্জের চিটাগাং রোড এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

র‌্যাব জানায়, সজিব মূলত একজন পেশাদার প্রতারক চক্রের সদস্য। তার নিজ এলাকায় সে প্রতারক লিটন হিসাবে পরিচিত। সে র‌্যাব-১১’র এএসপি পরিচয়ে এ পর্যন্ত ৯ টি বিয়ে করেছে বলে জানা যায়। প্রতারক সজিব দীর্ঘদিন ধরে নারায়ণগঞ্জ এলাকায় র‌্যাবের এএসপি হিসাবে পরিচয় দিয়ে সাধারণ লোকের কাছ থেকে মামলার তদবির, আসামী ছাড়ানোর জন্য উৎকোচ গ্রহন করাসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধ সংগঠিত করে আসছিল।

চিটাগাং রোড এলাকায় তাকে এএসপি হিসাবে দীর্ঘদিন ধরে সকলের কাছে পরিচিত বলে জানা যায়। আর জনগনের কাছে বিশ্বাস যোগ্যতা অর্জন করার জন্য সে বিশেষ কৌশলের আশ্রয় নিতো। সে তার মোবাইলে ফটোসপের মাধ্যমে পুলিশ ও র‌্যাবের বিভিন্ন উর্ধ্বতন কর্মকর্তার র‌্যাংকব্যাজ পরিহিত ছবির সাথে তার নিজের ছবি এডিটিং করে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণাসহ বিভিন্ন ধরণের অপরাধ সংগঠিত করত।

এমন কি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাকে রাষ্ট্রীয় পদক পরিয়ে দিচ্ছেন সম্বলিত একটি ভুয়া ছবিও তার মোবাইলে পাওয়া যায়। সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারনা করার জন্য রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ন উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে তাকে মিটিংরত অবস্থায়, পুলিশের ট্রেনিংরত অবস্থা সম্বলিত ভুয়া ছবিও সে ব্যবহার করে। প্রতারক সজিব শুধু এএসপি পরিচয়ই দিতনা, প্রতারনা করার জন্য মানুষের শ্রেনী বুঝে সে কখনো পুলিশের এসআই, কখনো র‌্যাবের ওয়ারেন্ট অফিসার পরিচয় প্রদান করে আসছিল।

র‌্যাব-১১ এর আভিযানিক দল তার কাছে বিপুল পরিমান বিয়ের দাওয়াত কার্ড জব্দ করে এগুলো পর্যালোচনা করে দেখা যায়, কার্ড গুলো তার নিজের বিয়ের, সেখানেও বর হিসাবে এএসপি সজিবের নাম লিখা। দাওয়াত কার্ডগুলোর উপরে র‌্যাব ও পুলিশের বিভিন্ন উর্ধ্বতন কর্মকর্তার নাম ঠিকানা লেখা ছিল।
এ সম্পর্কে সজিব জানায়, সে মাত্র ৭ দিন আগে প্রতারনা করার উদ্দেশ্যে সানারপার এলাকায় তার নবম বিয়ে সম্পন্ন করেছে। নববধুকে এই কার্ডগুলো দেখিয়ে বিশ্বস্ততা অর্জন করায় তার লক্ষ্য ছিল।

এছাড়াও ভুয়া এএসপি নারারায়ণগঞ্জ ও তার আশে পাশের এলাকা থেকে বিদেশে লোক পাঠানোর কথা বলে বিপুল পরিমান অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। গত সোমবার (১ অক্টোবর) সিদ্ধিরগঞ্জ হাউজিং এলাকায় প্রতারনার উদ্দেশ্যে তিন কোটি টাকা মূল্যের একটি বাড়ী ক্রয়ের জন্য এএসপি পরিচয় প্রদান করে ভয়ভীতির প্রদর্শের অভিযোগও পাওয়া যায়।

তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও র‌্যাব জানায়।

শেয়ার করুন.

Leave A Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.