হামলা করে আমাকে থামানো যাবে না- এড. সাখাওয়াত

0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি এড. সাখাওয়াত হোসেন খান বলেছেন, আমি সাত খুনের মতো মামলা পরিচালনা করেছি । সেই সময় আমাকে নানা ভাবে হত্যা হুমকি দেওয়া হয়েছিল । কিন্তু আমি পিছপা হয়নি। আর রাস্তায় আমার গাড়ি আটকে সদস্য সংগ্রহ কর্মসূচি বন্ধ করতে পারে না। কোন হামলাই আমাকে থামানো যাবে না তাই আসুন নিজেদের ভিতরে বিভেদ সৃষ্টি না করে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দলের জন্য কাজ করি ।

শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে বন্দর থানাধীন শুভকরদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে মহানগর বিএনপির নেতা জাকির খানের উদ্যোগে কলাগাছিয়া ইউনিয়ন বিএনপির আয়োজনে সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কর্মসূচি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন । তিনি বলেন , এই কর্মসূচি আমার কর্মসূচি না এটি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কর্মসূচি । তাই ছাত্রদল, যুবদল প্রতিটি নেতাকর্মীদের এই কর্মসূচি সফল করতে হবে । যারা এই কর্মসূচি পালন করতে বাধা সৃষ্টি করে করে তারা দলকে ভালোবাসে না । তারা কখনো বেগম খালেদা জিয়ার কর্মী হতে পারে না। যারা ঘরে বসে স্বপ্ন দেখছেন তা পূরণ হবে না। স্বপ্ন পূরণ করতে হলে ঘর থেকে বাহিরে এ দলের জন্য আন্দোলন সংগ্রাম করতে হবে। আগামী নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পত্র নিতে চাইলে দলের জন্য কাজ করেন । দল যাকে মনোনয়ন দিবে আমরা মাথা পেতে নেব । তার জন্য সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবো । বন্দরবাসী ঢাকার নিকটবর্তী হলোও এখানকার জনগণ বিভিন্ন ভাবে অবহেলিত । আমি বিগত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বলেছিলাম যদি আমি মেয়র নির্বাচিত হোই তাহলে একটি না শীতালক্ষ্যা নদীর উপর একাধিক সেতু নির্মাণ করব।

তিনি আরোও বলেন, এই সরকার মানুষের কথা বলার অধিকার হরণ করেছে । বর্তমান সময় আমাদের নিজেদের ভিতরে বিভেদ সৃষ্টি না করে বিএনপি কে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে । আর সকল ষড়যন্ত্রকে মোকাবেলা করতে হবে । আগামী দিনে বেগম খালেদা জিয়া নেতৃত্বে সহায় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে যে সব আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে তা সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে পালন করবো ।

কলাগাছিয়া ইউনিয়ন বিএনপির নেতা মোঃ আমিনুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও মহানগর মৎস্যজীবী দলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক পারভেজ মল্লিক’র সঞ্চালনায় প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মৎস্যজীবী দল কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মিলন মেহেদী, বিশেষ অতিথি বন্দর পৌর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এড. শাহ মাজহারুল ইসলাম আরোও উপস্থিত ছিলেন, মহানগর বিএনপি নেতা হাজী ইসমাইল সরদার, বন্দর থানা যুবদলের সাবেক সভাপতি ছানাউল্লাহ বাবুল, মহানগর মৎস্যজীবী দলের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম রতন, সহ সভাপতি দেলোয়ার হোসেন শাহ, তৃনমুল কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এম.এ হাসেম অপু , যুবদল নেতা জাহিদ,ইসমাইল, ছাত্রদল নেতা লিংকন খান, চঞ্চল , ইকবাল, রাকিব সহ অনেকেই ।

Leave A Reply