সিদ্ধিরগঞ্জে যুবলীগ ও তাঁতীলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ

0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

সিদ্ধিরগঞ্জ ৬নং ওয়ার্ডে সোনামিয়া বাজার এলাকায় যুবলীগ ও তাঁতীলীগের দুই গ্র“পের মধ্যে জমি সংক্রান্ত ঘটনায় মারামারি ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। মারামারি ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় তিন জন তাঁতীলীগের নেতাকর্মী আগত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় উভয় পক্ষ সিদ্ধিরগঞ্জ থানা লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। এতে সেলিম মজুমদার নামে একজন গ্রেফতার হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। সদ্য সমাপ্ত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ৬নং ওয়ার্ডে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম মন্ডলের পক্ষে কাজ করার কারণে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগের কর্মীরা থানা তাঁতীলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ কয়েকজন নেতাকর্মীকে অতর্কিত হামলা করেছে বলে গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। হামলাকারীদের অতর্কিত হামলায় ৩ জন গুরুতর আহত হয়েছে বলে জানাগেছে। এছাড়াও এঘটনা জানিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় উভয় পক্ষ পাল্টাপাল্টি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন ৬নং ওয়ার্ডের সোনামিয়া বাজার সংলগ্ন থানা তাঁতীলীগের সভাপতি লিটনের বাড়ীতে। সিদ্ধিরগঞ্জ থানা তাঁতীলীগের সভঅপতি লিটনের পরিবার ও এলাকা সূত্রে জানাজায়, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগের শির্ষ এক নেতার আশ্রয়ে থাকা নামধারী যুবলীগ নেতা ইদ্রিস এর ছেলে আক্তার, টোকাই সবুজ ও আলমগীরের ছেলে টোকাই কুট্টির নেতৃত্বে আরো অজ্ঞাত ২/৩ জন ক্যাডার গতকাল অপ্রত্যাশিত ভাবে ও অকারণে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা তাঁতীলীগের সভাপতি লিটনের উপর হামলা চালায়। হামলাকারী আক্তার চাকু দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। এঘটনার খবর পেয়ে লিটনের সহকর্মী থানা তাঁতীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও কর্মী রনি পাইলট সহ লিটনের স্ত্রী এগিয়ে গেলে উল্লেখিত সন্ত্রাসীরা তাদেরকেও এলোপাথারী লাঠিসোটা দিয়ে পেটাতে থাকে। তাদের আতœচিৎকারে পাশে পাশে লোকজন এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। এঘটনায় গুরুতর আগত লিটন সাথে সাথে থানা যুবলীগের সভাপতি ও ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ্ব মতিউর রহমান মতি কে মোবাইল ফোনে জানালে তিনি বলেন আমাকে জানিয়ে লাভ নেই। তুই হাজী সাহেব কে জানা। উল্লেখ্য লিটন তার ক্রয়কৃত জায়গায় কাজ করতে গেলে সন্ত্রাসীরা তাকে বাধা দেয়। বাধা দিলে লিটন প্রতিবাদ করে। প্রতিবাদ করলে যুগলীগ ক্যাডার আক্তার তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। লিটনের স্ত্রী এগিয়ে এলে আক্তার তাকে কিলঘুষি মারে। পাশে থাকা রনি ও পাইলট নামে দুইজন যুবককেও ঐ সংঘবদ্ধ চক্রটি ব্যাপক মারধর করে। আহত লিটন, রনি ও পাইলট স্থানীয় ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসাপাতাল থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে থানায় এস আই ফারুকের কাছে একটি অভিযোগ দায়ের করে।  এখবর পেয়ে শির্ষ এক নেতার ইঙ্গিতে ক্যাডার আক্তারও একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। লিটন জানায় আমি কোন অন্যায় করিনি। আমার স্ত্রী ও আমার সাথে থাকা তারাও কোন অন্যায় করেনি। আমি প্রথমে থানায় অভিযোগ দায়ের করলাম। অথচ থানা পুলিশ আমার অভিযোগের ভিত্তিতে কোন একশন না নিয়ে তারা পরে অভিযোগ করলে সেই অভিযোগের ভিত্তিতে নিরপরাধ সিদ্ধিরগঞ্জ থানা তাঁতীলীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিম মজুমদার কে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। কান্না জড়িত কণ্ঠে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা তাঁতীলীগের সভাপতি লিটন বলেন আমরাও আওয়ামীলীগ করি। অথচ আমাদের উপরে চরম অন্যায় ও নির্যাতন করা হয়েছে। তিনি বলেন আমাদের ছেলেরা সদ্য সমাপ্ত সিটি নির্বাচনে সিরাজুল ইসলাম মন্ডল এর পক্ষে কাজ করার কারণে আজকে আমাদের উপর জুলুম করা হচ্ছে। তিনি আরো বলেন আমাদেরকে দেখে নেওয়ার হুমকী দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন বর্তমানে এঘটনায় এলাকায় আতংক বিরাম করছে।

Leave A Reply