বন্দর খেয়াঘাট ও না.গঞ্জ কলেজ পরিদর্শনে সন্তুষ্ট সেলিম ওসমান

0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

নারায়ণগঞ্জ কলেজের নতুন ১০তলা ভবনের নির্মাণ কাজের পরিদর্শন করেছেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান। ইতোমধ্যে সেলিম ওসমানের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ঈদের পূর্বেই ভবনটির তৃতীয় তলার ছাদ ঢালাই সম্পন্ন হয়েছে। এ সময় তিনি নির্মাণ কাজের অগ্রগতি নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন। এর আগে বন্দর সেন্ট্রাল খেয়াঘাট দিয়ে নদী পারাপারে যাত্রী সেবার মানোন্নয়নে সরেজমিনে খেয়াঘাট পরিদর্শন করেছেন তিনি।

শনিবার ৯ সেপ্টেম্বর দুপুর সাড়ে ১২টায় সেন্ট্রাল খেয়াঘাট ও ১টায় কলেজের নতুন ভবনের নির্মাণ কাজের পরিদর্শন করেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান।

নতুন ভবনের নির্মাণ কাজের পরিদর্শন কালে তিনি কলেজে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের শ্রেনীকক্ষের সংকুলনের কথা চিন্তা করে আগামী অক্টোবর মাসের মধ্যে দ্বিতীয় তলা পর্যন্ত শ্রেনীকক্ষ হিসেবে ব্যবহারের উপযোগী হিসেবে প্রস্তুত করতে দ্রুত প্রয়োজনীয় কাজ সম্পন্ন করার ব্যাপারে নির্দেশনা প্রদান করেন।

অপরদিকে বন্দর সেন্ট্রাল খেয়াঘাট সরেজমিনে পরিদর্শন কালে তিনি খেয়াঘাটে চলাচলকারী নৌকার মাঝিদের সাথে কথা বলেন। মাঝিদের কোন প্রকার সমস্যা অথবা সেবার মানোন্নয়নে প্রয়োজনীয় নতুন কি পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে বলে মাঝিদের মন্তব্য জানতে চান। এ সময় মাঝিরা তাকে জানান, নতুন ট্রলার সার্ভিসের কারনে তাদের আয় রোজগার কিছুটা কমে গেছে। তাই মাঝিরা ট্রলার সার্ভিসের সময়সীমা কমিয়ে দেওয়ার জন্য এমপি সেলিম ওসমানের কাছে দাবী রাখেন।

মাঝিদের এমন অযৌক্তিক দাবীর পরিপ্রেক্ষিতে সেলিম ওসমান বলেন, মাত্র ৩০০ জন মাঝিকে সুবিধা দেওয়ার জন্য কোন অবস্থাতেই প্রতিদিন ঘাট দিয়ে যাতায়াতকারী লাখ লাখ সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ সৃষ্টি করা যাবে না। সাধারণ মানুষের সুবিধার্থে প্রয়োজনে ট্রলার সংখ্যা আরো বৃদ্ধি করা হবে। তবে মাঝিদের আয় রোজগার বন্ধ হয়ে তারা বেকার হয়ে যাক এটাও তার কাম্য নয়। তাই তিনি মাঝিদের আলোচনার বসার ব্যবস্থা করতে বলেন। যদি তাদের আয় রোজগারের জন্য বিকল্প কোন ব্যবস্থা করার প্রস্তাবনা থাকে তাহলে তিনি মাঝিদের সর্বাত্মক সহযোগীতা করতে প্রস্তুত আছেন।

নতুন ভবনের নির্মাণ কাজের পরিদর্শন কালে তার সাথে আরো উপস্থিত ছিলেন, কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ফজলুল হক রুমন রেজা, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কর্মাস এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল, বিকেএমইএ এর পরিচালক ফারুক বিন ইউসুফ পাপ্পু, মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান মুন্না, মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শওকত হাশেম শকু সহ অন্যান্য নেতৃবন্দ।

নির্মানাধীন ওই ১০ তলা ভবনের নিচ তলায় ৬টি কক্ষ এবং বাকী ফ্লোর গুলোতে ৭টি করে কক্ষ নির্মিত হবে। ভবনটি সম্পন্ন হলে নারায়ণগঞ্জ কলেজে শিক্ষার্থীদের শ্রেনী কক্ষের সংকুলন সমস্যা দীর্ঘ সময়ের জন্য সমাধান হবে প্রত্যাশা পরিচালনা কমিটির নেতৃবৃন্দদের।

Leave A Reply