না’গঞ্জের রাজনৈতিক দলগুলোর বৈরী মনোভাবে হতাশায় তৃনমূল!

0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

একাদশ জাতীয় সাংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে শুরু হয়েছে মনোনয়ন যুদ্ধের লড়াই। দলীয় টিকেট বাগিয়ে নেওয়ার জন্য নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিকদলগুলোর প্রভাবশালী নেতারা কেন্দ্রের নজরে আসার জন্য ইতিমধ্যেই বিভিন্নস্থানে জনসভা করে যাচ্ছেন। এমনকি মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সমর্থকরা এক অপরের বিষোদগারে মেতে উঠেছেন। নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক দলগুলোর এমন রহস্যজনক আচরনের কারনে দ্বিধাবিভক্তিতে ভোগছেন দলীয় কর্মী-সমর্থকরা। অপরদিকে মনোনয়নের ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ গুরুত্ব দিচ্ছে তৃণমূলের জনপ্রিয়তা ও স্বচ্ছ ইমেজকে। তবে বিএনপি এসবের পাশাপাশি প্রাধান্য দিচ্ছে বিগত দিনের আন্দোলন সংগ্রামের ভূমিকাকে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের নির্ধারিত সময় এখনও প্রায় দেড় বছর বাকি। তবে এরই মধ্যে নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক অঙ্গনে নির্বাচনী কথা-বার্তা আলোচিত হতে শুরু করেছে। দীর্ঘ দিন ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি এর মধ্যেই কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মোতাবেক শহর ও শহরতলীর বিভিন্নস্থানে কর্মী সংগ্রহের লক্ষ্যে ফর্ম বিতরন কার্য্যক্রম শুরু করে দিয়েছে। তবে এক্ষেত্রে অকেটাই বিএনপি থেকে পিছয়ে রয়েছে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ। জেলা ও মহানগর যুব মহিলালীগ এবং কৃষকলীগের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যেই দলের ভিতর দীর্ঘদীন ধরে জমে থাকা পুন্জীভূত ক্ষোভ প্রকাশ পেতে শুরু করেছে। এ কমিটিকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের দলীয় কোন্দল প্রকাশ পেতে শুরু করেছে। দলীয় কোন্দলের কারনে কেন্দ্রীয় কর্মসূচী পালনে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে আসছে দলটি। ফলে তৃনমূল আওয়ামীলীগের কর্মী সমর্থকরা হতাশার মধ্যে ভোগছে। আগামি জাতীয় সাংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে কোন ভাবেই মেনে নিতে পারছে না দলের সিনিয়র নেতাদের দায়িত্বহীনতামূলক কর্মকান্ড। সবকিছু মিলিয়ে অজানা আতংক গ্রাস করছে দলটির তৃনমূল পর্যায়ের আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দকে। সূত্রে জানা যায়, সংবিধান অনুযায়ী ২০১৮ সালের নভেম্বর থেকে ২০১৯ সালের জানুয়ারির মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার কথা। নির্বাচনের বেশ কিছু সময় বাকি থাকলেও এ নিয়ে ইতিমধ্যেই সরব হয়ে উঠেছে নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক অঙ্গন। আর জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি একে অপরের উপর বিষোদগার করলেও স্ব স্ব স্থান থেকে দলটির সকল পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ কেন্দ্রীয় কর্মসূচী পালন করে আসছে। দলের মধ্যে তরুন নেতৃত্বকে কাছে টানার জন্য তারা বিভিন্ন কৌশলে এগুচ্ছেন। নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতৃবৃন্দ আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকাকালে বিভিন্ন অনিয়ম, অত্যাচার, নির্যাতনের চিত্রকে তরুনদের মাঝে তুলে ধরার মাধ্যমে দলে যোগদানের লক্ষ্যে আকৃষ্ট করার চেষ্টা করছেন।অপরদিকে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মানাতো দূরের কথা উল্টো নীজ দলের মধ্যে কোন্দল প্রকাশ্যে নিয়ে এসেছেন। নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের কোন্দলের কারনে কেন্দ্রীয় কর্মসূচী পালনে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছেন। নারায়ণগঞ্জ-৪(ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান দেশের বাহিরে অবস্থান করায় দলয় কোন্দলে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন। দেশের বাহির থেকে সাংসদ শামীম ওসমান দেশে আসার পর নারায়ণগঞ্জের দলীয় কোন্দল অনেকটাই কমে আসবে বলে ধারনা তৃনমূল্যের। আর বর্তমানে দলীয় কোন্দল যে প্রকট আকার ধারন করেছে এতেই প্রমানিত হয় আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে দক্ষ রাজনৈতিক ব্যাক্তির অভাব রয়েছে। অ্যথায় দলীয় কোন্দল প্রকট আকার ধারন করার আগেই এর সমাধান করা সম্ভব হতো।এ ব্যাপারে জানতে চাওয়ার জন্য নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আঃহাই বলেন, নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে দক্ষ রাজনৈতিক ব্যাক্তির অভাব নেই। তবে দীর্ঘদীনের পুন্জিভূত ক্ষোভ প্রকাশ পেতে শুরু করেছে। কিছু সুবিধাবাদীরা ঘোলা পানিতে মাছ স্বীকারের চেষ্টা করছে দলের মধ্যে ফাটল ধরানোর জন্য। আর যে সকল সুুবিধাবাদীরা ঘোলণা পানিতে মাছ স্বীকারের চেষ্টা করছে তাদের চিহ্নিত করা হবে।দলের সিনিয়র নেতাদের দলীয় কোন্দলের প্রভাব তৃনমূল আওয়ামীলীগের উপর পড়ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে আঃ হাই আরো বলেন, দলের মধ্যে কোন্দল নেই তবে পুন্জিতভূত ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ এটা। আর এর ফলে তৃনমূল্যের ক্ষতি নয় বরং রাজপথে নেতৃত্বদানকারী সাধারন কর্মী সমর্থকরা দলের বিভিন্ন কমিটিতে স্থান পাওয়ার সম্ভাবনা বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।তবে এ ব্যাপারে মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন মন্তব্য করতে না চাইলেও দলটির সাধারন সম্পাদক এড. খোকন সাহা বলেন, আমরা যা করছি এটা দলীয় কোন্দল বুঝায় না’ এটা হচ্ছে রাজনৈতিক খেলা। কেননা, রাজনীতিতে শেষ কথা বলতে কিছু নেই। আমরা বর্তমানে যে পরিস্থিতিতে আছি এবং যে সকল সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হচ্ছে রাজনীতির স্বার্থে করা হচ্ছে। আর এর ফলে কে খুশি কিংবা কে মনক্ষুন্ন হলো তৃনমূল কর্মীদের স্বার্থের কথা চিন্তা করলে তা ভাবার সময় নেই। উল্টো কিছু কিছু পুচকা ছেলে নারায়ণগঞ্জের শান্ত রাজনীতিকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। তিনি আরো বলেন, তৃনমূল আওয়ামীলীগের কর্মী সমর্থকের স্বার্থের কথা চিন্তা করেই ভবিষত্যে নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে সকল সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হবে।

 

Leave A Reply