জেলা আইনজীবী সমিতি ভবন নির্মাণে ৩ কোটি টাকার অনুদান দিবেন সেলিম ওসমান

0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নতুন ভবন নির্মাণের জন্য ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ৩ কোটি টাকা দিয়ে আর্থিক সহযোগীতা করবেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান। তবে তিনি নগদ টাকা না দিয়ে ভবন নির্মাণে কাজের ব্যয় পরিশোধ করবেন তিনি। তবে ভবন নির্মাণের জন্য ঘোষণা দেওয়ার পর আনুষ্ঠিকতায় ২ বছর বিলম্ব হওয়ায় নিজে লজ্জিত বলেও মন্তব্য করেছেন এমপি সেলিম ওসমান।

রোববার ২৩ সেপ্টেম্বর দুপুর ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রুটের চাঁদমারী এলাকায় অবস্থিত নারায়ণগঞ্জ জেলা জজ আদালত ভবনের সম্মুখে ভবন নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন শেষে আলোচনা সভায় সেলিম ওসমান এ ঘোষণা দিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি বলেছেন, নতুন ভবন নির্মাণের এই আনুষ্ঠানিকতা যেন শুধুমাত্র নির্বাচনী আনুষ্ঠানিকতা যেন না হয়। শুরু করলে অবশ্যই শেষ করতে হবে।

আলোচনা সভায় জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট হাসান ফেরদৌস জুয়েল প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল হক। বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ.কে.এম শামীম ওসমান, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু, নারায়ণগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য গাজী গোলাম দস্তগীর, জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনের নারী সদস্য অ্যাডভোকেট হোসেন আরা বেগম বাবলী, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবু হাসনাত শহীদ মোহাম্মদ বাদল, মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা, জেলা প্রশাসক রাব্বি মিঞা, জেলা পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মহসিন মিয়া সহ অন্যান্যরা।

এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান সাংবাদিকদের জানান, আসলে আইনজীবী সমিতির নতুন ভবন নির্মাণের জন্য সহযোগীতা করার বিষয়টি আমি ২০১৬ সালেই ঘোষণা দিয়ে ছিলাম। কিন্তু ২ বছর বিলম্বতি হওয়ার পেছনেও হয়তো অনেক কারন রয়েছে। যার মধ্যে প্রধান দুটি কারন হচ্ছে আমার কাছে ভবন নির্মাণের ব্যাপারে লিখিত কোন চাহিদাপত্র প্রেরণ করা হয়নি। অথবা আইনজীবী সমিতির নেতৃবৃন্দরা হয়তো আমার সাথে আলোচনায় বসার জন্য আমি তাদেরকে সময় দিতে পারিনি। তাই এ ব্যাপারে আমি লজ্জিত এবং দু:খ প্রকাশ করেছি।

তিনি আরো বলেন, আমি ঘোষণা দিয়েছি ভবন নির্মাণে আমি ৩ কোটি টাকা দিয়ে সহযোগীতা করবো কিন্তু সেটা নির্মাণ কাজের ব্যয় পরিশোধের মাধ্যমে। আমার এমন ঘোষণার পেছনে অন্য কারণ নেই। আমি আমার নির্বাচনী এলাকায় ৭টি ইউনিয়নে ৭টি স্কুল ভবন, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার ভবন, নারায়ণগঞ্জ কলেজের ভবন নির্মাণ করেছি। সেক্ষেত্রে আমার অভিজ্ঞতা থেকে মনে হয়েছে ভবন নির্মাণের জন্য প্রৌকশলী যে বাজেট আইনজীবী নেতৃবৃন্দদের দিয়েছেন সেই প্রস্তাবনায় কিছুটা ভুল রয়েছে। হয়তো নেতৃবৃন্দরা এ ব্যাপারে অভিজ্ঞ না হওয়া ভুলটি তাদের নজরে আসেনি। তবে সবশেষ এক কথায় আমি বলবো, আইনীজীবী সমিতির জন্য নতুন যে ভবনটি নির্মিত হবে এটিও নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নের একটি অংশ। আমি প্রায়শই আমার বক্তব্যে বলেছি, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কর্মাস, নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতি এবং নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব যখন থেকে এক টেবিলে বসে কাজ করা শুরু করবে সেদিন থেকে নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নে কোন ষড়যন্ত্রই আর উন্নয়নকে আটকে রাখতে পারবেনা। কিন্তু দু:খজনক হলেও সত্য নারায়ণগঞ্জে যুগ যুগ ধরে ৮টি জাতীয় ভিত্তিক এবং প্রায় ৩৯টি জেলা ভিত্তিক ব্যবসায়ী সংগঠন এক ছাতার তলায় থেকে সম্মিলিত ভাবে কাজ করলেও, নিজেদের মাঝে ভুল বুঝাবুঝি বা অন্য যে কোন কারনে আইনজীবী এবং সাংবাদিকবৃন্দরা এখনো এক ছাতার তলায় আসতে পারেনি। আমি সকলের কাছে আহবান রাখবো আসুন আমরা সবাই নিজেদের মাঝে ভুল বুঝাবুঝির অবসান ঘটিয়ে যার যার পর্যায় থেকে একছাতার তলায় এসে একত্রিত হই এবং নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে নিয়ে যাই সর্বোচ্চ পর্যায়।

শেয়ার করুন.

Leave A Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.