গোদনাইলে জমির মালিককে মারধর ও নির্মাণ সামগ্রী লুট

0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইলে জমির প্রকৃত মালিক ও তার লোকজনকে মারধর ও জমির উপর থাকা নির্মাণ সামগ্রী লুট করে নিয়ে গেছে আজিম মোল্লা বাপ্পী গংরা। এসময় জমির মালিককে হুমকি দমকি দিয়ে ভয়ভীতি দেখানোয় জমির মালিক ও তার লোকজন নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল নয়াপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। আজিম মোল্লা বাপ্পী জমির মালিকানা দাবি করে প্রকৃত মালিক সালাউদ্দিন গংকে উক্ত জমি থেকে উচ্ছেদ করতেই এ হামলা ও লুটপাট বলে স্থানীয়রা জানায়।
জানা যায়, সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল নয়াপাড়া এলাকার মৃত সামছুল হকের ছেলে সালাউদ্দিন তার বড় বোন শামীমা আক্তার লিলির ক্রয়কতৃ গোদনাইল মৌজার ৯ শতাংশ জমির উপর নির্মাণ করছিলেন। গতকাল মঙ্গলবার সকালে উক্ত জমির পার্শ্ববর্তী কাটুন ফ্যাক্টরীর মালিক আজিম মোল্লা বাপ্পীর নেতৃত্বে কবির হোসেন, জামাল হোসেন, হাশেম মোল্লা, হারুন মোল্লা, আলাউদ্দিন ভূইয়াসহ ২৫/৩০ জন জরো হয়ে উক্ত জমিতে থাকা নির্মাণ সামগ্রী টিন, কাঠ, বাশঁ, নিয়ে যায় ও দুটি সাইনবোর্ড ভাংচুর করে। এ সময় আজিম মোল্লা বাপ্পী গংরা সালাউদ্দিন ও তার লোকজনকে হুমকি-দমকি দিয়ে উক্ত জমি তাদের বলে দাবি করে। জমির মালিকানা, জোরপূর্বক দখল ও নানাভাবে হুমকি দমকির কারণে ইতিপূর্বে সালাউদ্দিন থানা পুলিশসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তার বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিলসহ আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। আদালত নিষেধাজ্ঞা দেয়া সত্বেও আজিম মোল্লা বাপ্পি গংরা জোরপূবর্ক এবং অবৈধভাবে সালাউদ্দিন গংদেরকে জমিতে কাজ করতে বাধাঁ দিচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় গতকাল মঙ্গলবার সকালে সালাউদ্দিন উক্ত জমিতে কাজ করতে গেলে আজিম মোল্লা গংরা তাদের নির্মাণ সামগ্রী লুটপাটসহ সাইনবোর্ড ভাংচুর করে। খবর পেয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এস আই রেজাউল ও ফয়সাল ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয় পক্ষকে শান্ত করে। এসময় পুলিশ আইন নিজের হাতে তুলে না নেয়ার পরামর্শ দেয়। সালাউদ্দিন জানায়, উক্ত জমির ক্রয় সুত্রে মালিক তার বড় বোন শামীমা আক্তার লিলি। ২০১০ সালে ক্রয়ের পর নামজারী ও জমাভাগসহ সরকারী খাজনাদি পরিশোধ করে জমি দখলে রেখেছে। কিন্তু পাশ্ববর্তী সুচতুর, পরভিত্ত লোভী ও ভূমিদস্যু আজিম মোল্লা বাপ্পি জোরপূর্বক তাদের জমি দখলে নিতে চায়। জমিতে যতবারই নির্মাণ করতে উদ্যোগ নিয়েছেন তত বারই আজিম মোল্লা ও তার লোকজন তাদেরকে বাঁধা দিয়েছে এবং হুমকি দমকি দিয়ে নানাভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে যাচ্ছে। এ ঘটনার পর থেকে তারা নিরাপত্তাহীনতায় দিন কাটাচ্ছে। সালাউদ্দিন আরও জানায়, উক্ত জমিটি দুটি ব্যংাকে বন্ধক রেখে কোটি টাকা ঋণ নিয়ে ব্যবসা করছি। জমির কাগজপত্র সঠিক না হলে ব্যাংক ঋণ মঞ্জর করত না। তছাড়া নিয়মিত ব্যবসা করে ব্যাংক ঋণ পরিশোধসহ সরকারী সব ধরনের কর পরিশোধ করে যাচ্ছি। আজিম মোল্লা বাপ্পী জোরপূর্বক উক্ত জমি দখলে নেয়ার চেষ্টা অব্যঅহ রেখেছে। বেদখলদারদের কাছ থেকে আমাদেরকে রক্ষা করতে সংশ্লিষ্ট সকলের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সালাউদ্দিন গংরা।

 

Leave A Reply