এবার মেট্রো নিটিং অ্যান্ড ডাইং ভূতের রহস্য ভেদ সেলিম ওসমানের

0

বিজয় বার্তা ২৪ ডট কম

ভূত আতংকে দুই দিন বন্ধ থাকার পর অবশেষে কাজে যোগ দিয়েছে ‘মেট্রো নিটিং অ্যান্ড ডাইং’ এ কর্মরত শ্রমিকেরা। সেই সাথে প্রতিষ্ঠানটিতে কর্মরত প্রায় ৬ হাজার শ্রমিকের মন থেকে তাড়ানো সম্ভব হয়েছে ভূতে ভয়। শনিবার ২ নভেম্বর সকাল সাড়ে ১০টায় বিকেএমইএ সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের হস্তক্ষেপে শিল্পপুলিশ, ফতুল্লা থানা পুলিশ প্রতিষ্ঠানটির মালিক ও শ্রমিকদের সাথে আলোচনার মধ্য দিয়ে ভূত দেখার রহস্য ভেদ করা হয়েছে।

এর আগে কারখানারটির ভীত শ্রমিকদের আবদারের প্রেক্ষিতে শ্রমিকদের মধ্য থেকে সন্ধান দেওয়া জৈনক হুজুরের মাধ্যমে ভূত তাড়ানোর ব্যবস্থা করা হয়। জৈনক হুজুরের বলে দেওয়া মাসলা অনুযায়ী কারখানার ভেতরে ৭টি খাঁসি জবাই করা হয়। পরে জবাইকৃত খাঁসি গুলো হুজুরের বলে দেওয়া ঠিকানা মোতাবেক ৭টি মাদ্রাসায় প্রেরণ করা হয়।

এ ঘটনার পর পরই ‘মেট্রো নিটিং অ্যান্ড ডাইং’ গিয়ে পৌছান বিকেএমইএ এর সভাপতি ও সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান। যেখানে আগে থেকেই উপস্থিত ছিলেন, ‘মেট্রো নিটিং অ্যান্ড ডাইং এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক অমল পোদ্দার, বিকেএমইএ এর পরিচালক জিএম ফারুক, শিল্পপুলিশের সুপার অহিদুল ইসলাম ও এএসপি মাহাবুব, ফতুল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মঞ্জুর কাদের, পরিদর্শক শাহজালাল।

সকলের উপস্থিতিতে বিকেএমইএ সভাপতি সেলিম ওসমান, প্রতিষ্ঠানটিতে ঘটে যাওয়া ঘটনার সময় প্রত্যক্ষদর্শী মিডলেভেলের কর্মকর্তা সহ অনেকের সাথে কথা বলেন। সকলের সাথে কথাবার্তায় বেরিয়ে আসে ভূতের আসল রহস্য।

হুজুরের বলে দেওয়া ৭টি মাদ্রাসা থেকে খাঁসি নিতে আসা একটি মাদ্রাসার শিক্ষার্থী কাছ থেকে জানা যায়, যিনি এই কারখানার ভূত তাড়িয়েছেন তিনি মূলত তাবিজ কবজ, জাড়ফুক করে থাকেন। এর আগে আরো দুটি গার্মেন্টের ভেতরে আছড় করা ভূত একই হুজুরের মাধ্যমে তাড়ানো হয়েছে। আর সেখানে গরু জবাই করে ভূত তাড়ানো হয়েছিল।

গার্মেন্টস কারখানার ভেতরে ভূতের আছড় হওয়া এবং ভূত তাড়ানোর জন্য একই হুজুরের আগমনের বিষয়টি সকলের কাছে সন্দেহ জনক মনে হলে বিষয়টি সুষ্ঠুভাবে খতিয়ে দেখতে শিল্প পুলিশ ও ফতুল্লা থানা পুলিশকে গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করতে বলেন এমপি সেলিম ওসমান।

পরে তিনি প্রতিষ্ঠানটিতে কর্মরত সকল শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ইসলাম ধর্মে ভূত বিশ্বাস করেনা। কোন ধর্মেই ভূত বিশ্বাস করে না। এমনকি বিজ্ঞানেও ভূত বিশ্বাস করে না। এখানে খাঁসি জবাই দিয়ে ভূত তাড়ানো হয়েছে। কিন্তু খাঁসি গুলো কি ভূত খেয়েছে? এর আগে অন্য কারখানায় গরু জবাই করে ভূত তাড়ানো হয়েছে। মালিক মুসলিম হলে ভূতে গরু চায় আর হিন্দু হলে খাঁসি চায় তাহলে ভূত আসলে কোন ধর্মের?

শ্রমিকদের প্রতি অনুরোধ রেখে তিনি বলেন, সামনে বাংলাদেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এ নির্বাচনকে বানচাল করতে একটি মহল নানা ভাবে পায়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। তারা বিভিন্ন রকম উস্কানি দিয়ে গার্মেন্টস সেক্টর অরাজকতা সৃষ্টির পায়তারা করছেন। আপনারা কোন প্রকার গুজব কিংবা কোন উস্কানির ফাঁদে পা দিবেন না। যে কোন প্রকার সমস্যা হলে মালিক পক্ষকে জানাবেন নয়তো আপনাদের মধ্য থেকে ৫জন ছেলে এবং ৫জন মেয়ে আমার সাথে দেখা করে আপনাদের সমস্যার কথা জানাবেন। আমি নিজে এসে আপনাদের সমস্যার সমাধান দিবো। মনে রাখবেন আপনারদের মাধ্যমে বাংলাদেশে সব থেকে বেশি বৈদেশিক মুদ্রা অর্জিত হয়। আপনারা ছাড়া কোন মালিকের একার পক্ষে সম্ভব নয় দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখা। আপনারা হলে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক মুক্তিযোদ্ধা।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনাদের কথা চিন্তা করে নূন্যতম বেতন যেটা ৫৩০০ টাকা ছিল সেটা বৃদ্ধি করে ৮হাজার টাকা নির্ধারণ করেছেন। অল্প সময়ের মধ্যেই সেটা কার্যকর করা হবে। অনেক মালিক নির্ধারিত নতুন বেতনের ব্যয় সামঞ্জস্য আনার জন্য ৩০শতাংশ শ্রমিক ছাটায়ের চিন্তা ভাবনা করছেন। কিন্তু আমরা কোন মালিককে কোন কারন ছাড়া শ্রমিক ছাটাই করতে দিবো না। আপনারা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য দোয়া করবেন। উনি যেন আগামীতে আবারো বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন। উনি প্রধানমন্ত্রী হলে দেশের উন্নয়নের পাশাপাশি আপনাদের বেতন ভাতা সুযোগ সুবিধাও আরো অনেক বৃদ্ধি পাবে।

এ সময় উপস্থিত সকল শ্রমিক দুই হাত তুলে এমপি সেলিম ওসমানের বক্তব্যে সমর্থন দেন এবং কাজে যোগদান করতে চাইলে সেলিম ওসমান সকলের দুপুরের ছুটি আধাঘন্টা বাড়িয়ে দিয়ে সবাইকে দুপুরের ছুটি ঘোষণা করেন। পাশাপাশি কারখানাটি পূর্বের ন্যায় বছরে দুইবার শ্রমিকদের মাঝে পহেলা বৈশাখ এবং ঈদ পূর্ণমিলনী আয়োজন করতে মালিক পক্ষকে অনুরোধ করেন।

শেয়ার করুন.

Leave A Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.